আয় খোকা আয়: জঙ্গী সঙ্গীত


হায়াল্লা!

দৈনিক মতিকণ্ঠ

খোকা:
কাটে না সময় যখন আর কিছুতে
NSU-র লেকচারে মন বসে না
হাদিস-কোরানে আমি ঢোকাই মাথা
মনে হয় আইসিস ডাকছে আমায়
আয় খোকা আয়
আয় খোকা আয়

আইসিস:
আয় রে আমার সাথে ফান করে যা
নতুন নতুন হুর নে বেছে নে
কিছুই যখন ভালো লাগবে না তোর
সেক্স-জিহাদিকে তুই লাগাবি রে
আয় খোকা আয়
আয় খোকা আয়

খোকা:
জিহাদ যখন মনে আগুন ধরায়
দুনিয়ার মজা সব জুড়িয়ে যায়
কুফরি কিতাবগুলো ছুঁড়ে ফেলি
মনে হয় আইসিস ডাকছে আমায়
আয় খোকা আয়
আয় খোকা আয়

আইসিস:
আয়রে আমার সাথে আয় এখনি
পরিচিত নিজ ঘর শহর ছেড়ে
যদি না পারিস দেশ ছাড়তে তুই
দেশে থেকে হবি তুই জিহাদি রে
আয় খোকা আয়
আয় খোকা আয়

খোকা:
যখনই সাজি আমি খাস লেবাসে
সুন্নতী দাড়ি মোর নূরানি বাড়ায়
জিহাদের দাওয়া আসে আকাশ থেকে
মনে হয় আইসিস ডাকছে আমায়
আয় খোকা আয়
আয় খোকা আয়

আইসিস:
আয় রে আমার কাছে আয় এখনি
জিহাদের রাহে আমি নিবো…

View original post 73 more words


শব্দকল্পদ্রুম | মুহম্মদ জাফর ইকবাল


সাদাসিধে কথা আর্কাইভ

১.
ঠিক কীভাবে এটা শুরু হয়েছে তার খুঁটিনাটি মনে নেই। সারা পৃথিবীতেই বানানের একটা প্রতিযোগিতা হয় – আমাদের দেশেও হয়েছে তবে সেটা বাংলার জন্যে নয় – ইংরেজির জন্যে! খুব চমৎকার আয়োজন – কম বয়সী ছেলেমেয়েদের উৎসাহ উদ্দীপনা দেখে মনটা ভরে যায়। তখনি সম্ভবত মনে হয়েছিল বাংলার জন্যে এরকম একটা আয়োজন কি আরও বেশী প্রয়োজন নয়? ইংরেজী বানানের মাঝে একটা শৃংখলা আছে, বাংলা বানান নিয়ে আমি নিজে হাবুডুবু খেয়ে যাই, ছেলেবেলায় একরকম বানান লিখেছি এখন অন্যভাবে লেখা হয়। চেনা শব্দগুলোও কেমন জানি অচেনা মনে হয়। আমি সেটা নিয়ে মোটেও অভিযোগ করছি না, ভাষা থেকে জীবন্ত আর কিছু পৃথিবীতে নেই। যেই ভাষা যত বেশী জীবন্ত সেই ভাষায় তত বেশী পরিবর্তন হয়। সেই পরিবর্তনে ভাষা তত বেশী সমৃদ্ধ হয়। কাজেই পরিবর্তন নিয়ে বুড়ো মানুষের মত অভিযোগ করা যাবে না।

কাজেই দেশের ছেলেমেয়েদের নিয়ে বাংলা বানানের প্রতিযোগিতা একটা সুন্দর বিষয় হতে পারে কিন্তু সমস্যা হলো সেটা আয়োজন করবে কে? আমাদের দেশের সংবাদপত্র এরকম অনেক…

View original post 1,591 more words


একজন সাধাসিধে মা | মুহম্মদ জাফর ইকবাল


সাদাসিধে কথা আর্কাইভ

১.
আমার মা সেপ্টেম্বরের ২৭ তারিখ খুব ভোর বেলা মারা গেছেন। আমার বাবা যখন মারা গেছেন তখন তার কাছে কোনো আপনজন ছিলো না, একটা নদীর তীরে জেটিতে দাড়া করিয়ে পাকিস্তান মিলিটারী গুলি করে তাকে হত্যা করে তাঁর দেহটা নদীতে ফেলে দিয়েছিল। আমার মা যখন মারা যান তখন তার সব আপনজন – ছেলে মেয়ে ভাই বোন নাতি নাত্নীরা সবাই তার পাশে ছিল। আমার বাবা যখন মারা যান তখন আমার মায়ের বয়স মাত্র ৪১, তারপর আমার মা তার সন্তানদের এবং তার আপনজনদের জন্যে আরো ৪৩ বছর বেঁচে ছিলেন।

আমার মায়ের মৃত্যুটি একান্তভাবেই একটি পারিবারিক ঘটনা হওয়ার কথা ছিলো কিন্তু আমি এক ধরণের বিস্ময় নিয়ে আবিষ্কার করেছি তার অসুস্থতার খবরটিও পত্রপত্রিকা এবং টেলিভিশনে প্রচার হয়েছে। তার মৃত্যুর খবরটি সব পত্রপত্রিকায় খুব গুরুত্ব দিয়ে ছেপেছে। যদি খবরের শিরোনাম হতো, “হুমায়ূন আহমেদের মায়ের জীবনাবসান”, আমি সেটা স্বাভাবিক ব্যাপার হিসেবে ধরে নিতাম। কিন্তু আমি খুব অবাক হয়েছি যখন দেখেছি আমার মা’কে তার নিজের নামে পরিচয় দিয়ে…

View original post 1,709 more words


নিলয়ের হাতে বিজয়ের চিহ্ন | মুহম্মদ জাফর ইকবাল


সাদাসিধে কথা আর্কাইভ

১.
গত কয়েক দিন আমি যতবার খবরের কাগজের পৃষ্ঠা খুলেছি ততবার নীলাদ্রি চট্টোপাধ্যায় নিলয়ের হাসিমাখা মুখটির ছবি দেখে বুকের ভেতর এক ধরনের বেদনা অনুভব করেছি। তার পরিপূর্ণ একজন মানুষের পরিচয় ছিল। এখন তার একটি মাত্র পরিচয়, সেটি হচ্ছে ব্লগার। শুধু ব্লগার নয়, নৃশংসভাবে খুন হওয়া একজন ব্লগার। এই দেশে ব্লগার পরিচয়টি এখন একটি অভিশপ্ত পরিচয়। আমরা মোটামুটিভাবে ধরে নিয়েছি- যারা ব্লগার, আগে হোক পরে হোক ধর্মান্ধ মানুষের চাপাতির আঘাতে তাকে মারা যেতে হবে। রাষ্ট্রযন্ত্র তখন অন্যদিকে তাকিয়ে থাকবে, তাদের হত্যাকান্ড নিয়ে মুখ খুলবে না, কারণ এটি অতি ‘সংবেদনশীল’ একটি বিষয়।

ধর্মান্ধ মানুষেরা কথা দিয়েছিল তারা প্রতি মাসে একজন করে হত্যা করবে। তারা তাদের কথা রেখে যাচ্ছে, মাঝে মাঝে এক মাসের জায়গায় হয়তো তিন মাস হয়েছে, কিন্তু নিয়মিতভাবে ব্লগার হত্যায় এতটুকু বিরতি পড়েনি। তারা আরো সাহসী হয়েছে, আরো বেপরোয়া হয়েছে। আগে বাসার বাইরে ঘাপটি মেরে থাকত এখন তারা বাসা খুঁজে বের করে সেই বাসায় হাজির হয়। পাঁচতলা বাসায় পৃথিবীর নিষ্ঠুরতম হত্যাকান্ড…

View original post 2,049 more words


দেশের বাইরে দেশ | মুহম্মদ জাফর ইকবাল


সাদাসিধে কথা আর্কাইভ

১.
পৃথিবীর অন্য সব মানুষের মতোই আমারও বেড়াতে খুব ভাল লাগে। যত সময় যাচ্ছে নানা কাজে ততই ব্যস্ত হয়ে যাচ্ছি আর আমার ঘুরে বেড়ানোর জগতটি ততই ছোট হয়ে যাচ্ছে ভেবে একটু মন খারাপ হয়। প্রথম প্রথম যখন নানা ধরনের অলিম্পিয়াড শুরু করা হয়েছিল তখন সেগুলো দাঁড় করানোর জন্যে সব জায়গায় ঘুরে বেড়িয়েছি। ট্রেনের একটা বগিতে কিংবা একটা মাইক্রোবাসে সবাই মিলে গাদাগাদি করে বসে এই দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্ত ঘুরে বেড়ানোর মতো আনন্দ আর কোথায় পাওয়া যাবে? সাধারণত যাদের সাথে যাই তারা প্রায় সবাই কম বয়সী তরুণ। কোথায় থাকবো কী খাব সেগুলো নিয়ে কখনোই মাথা ঘামাতে হয় না। তাদের ঘাড়ে সব দায়িত্ব চাপিয়ে দিয়ে আমি ঘুরে বেড়ানোর আনন্দটা উপভোগ করি।

কিন্তু যখন দেশের বাইরে যেতে হয় তখন হঠাৎ করে ঘুরে বোড়ানোর বিষয়টি আনন্দের বদলে কেমন জানি বিভীষিকার মতো হয়ে ওঠে। বিদেশে যেতে হলে ভিসা নিতে হয়। বাংলাদেশের মানুষকে ভিসা নিতে হলে যে অসম্মানের ভেতর দিয়ে যেতে হয়, সেরকমই মনে…

View original post 1,879 more words


People who read YA



WEEKLY PHOTO CHALLENGE: DOOR


Words We Women Write

WP photographer Cheri says a door is an everyday thing, yet is often a symbol — of a beginning, a journey forward or inward, a mark of one’s home, or even a step into the unknown.

CIMG4308Above the town of Randazzo, I hiked in the Parco Dell’Etna across the lava fields to the Rifugio Giovanni Saletti hut. A welcome sight ~ despite the state of its door.

Toni 7/6/15

View original post


It takes a lot of courage



Musically funny



If smartphones had existed 2000 years ago



Follow

Get every new post delivered to your Inbox.

Join 575 other followers

%d bloggers like this: